মঙ্গলবার, ৯ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চির নিদ্রায় শায়ীত হলেন আল্লামা শফী




লাখ লাখ ভক্তকে কাঁদিয়ে দীর্ঘ দিনের প্রিয় কর্মস্থল হাটহাজারী মাদ্রাসার ‘মাকবারাতুল জামিয়া’য় সমাহিত হয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমির ও সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম আল্লামা শাহ আহমদ শফী।
শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বেলা ২টা ১৫ মিনিটে হাটহাজারী ডাক বাংলো চত্বরে তার জানাজা সম্পন্ন হয়।
তার দীর্ঘ দিনের প্রিয় কর্মস্থল হাটহাজারীর ‘বড় মাদ্রাসা’ হিসেবে পরিচিত আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলামের মাঠ প্রাঙ্গণে স্থান সংকুলন না হওয়ায় ডাক বাংলো চত্বরে জানাজার নাম সম্পন্ন হয়।
জানাজার নামাজের ইমামতি করেন তার বড় ছেলে মাওলানা মোহাম্মদ ইউসূফ। জানাজার আগে তিনি উপস্থিত লোকজনসহ দেশবাসীর কাছে তাঁর বাবার জন্য দোয়া চান।
লাখো জনতার অংশগ্রহনে জানাজা নামাজ শেষে আল্লামা শফীর ওসিয়ত অনুসারে তার প্রিয় মাদ্রাসার বাইতুল আতিক জামে মসজিদ সংলগ্ন ‘মাকবারাতুল জামিয়া’ নামক কবরস্থানে চিরঘুমে শায়িত করা হয়।
স্মরণকালের সবচেয়ে বড় এই জানাজায় আলেম, রাজনীতিক, সরকারি কর্মকর্তাসহ দেশের নানা প্রান্ত থেকে কয়েক লাখ ধর্মপ্রাণ জনতা অংশ নেন।
এ সময় শতবর্ষী আলেম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সহকর্মী, ছাত্র, ভক্ত ও অনুসারীসহ জানাজায় আসা সকলে কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়।
জানাজা উপলক্ষে এলাকাজুড়ে বাড়ানো হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা। নিশ্চিন্দ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ৬ শতাধিক র‌্যাব ও পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের পাশাপাশি ১০ প্লাটুন বিজিবি সদস্য মোতায়েন করা হয় হাটহাজারী, পটিয়া, রাঙ্গুনিয়া ও ফটিকছড়িতে।
এদিকে জোহরের নামাজের আগে হেফাজতের মহাসচিব ও মাদ্রাসার সিনিয়র শিক্ষক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীসহ মাদ্রাসার কয়েকজন সিনিয়র শিক্ষক উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন।

সম্পাদক: শাহ সুহেল আহমদ
প্যারিস ফ্রান্স থেকে প্রচারিত

সার্চ/খুঁজুন: