মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তরুণ প্রজন্মের বিবেচনাবোধ সুদৃঢ় হওয়ার বিকল্প নেই




চবি প্রতিনিধি

রাঙ্গুনিয়া স্টুডেন্টস ফোরাম চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এর উদ্যোগে ‘রাঙ্গুনিয়ার কৃতিজন পরিচিতি’ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

শনিবার (৩ জুলাই) দেশে-প্রবাসে ছড়িয়ে থাকা রাঙ্গুনিয়া উপজেলার কৃতি ব্যক্তিত্বদের পরিচিতি ও কৃতিত্ব তুলে ধরতে এই আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে ছিলেন সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোঃ নুরুল আলম এবং সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি (ফিন্যান্স এন্ড ডেভেলপমেন্ট) মোঃ শাহাব উদ্দিন কোরাইশি।

সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন এর সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক মিনহাজুর রহমান শিহাব এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি মোঃ নুরুল আলম বলেন, আমরা নৈতিক শিক্ষার কথাই বলি বা মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন শিক্ষার কথাই বলি সবকিছুর যোগসূত্র হল সুশিক্ষা। বর্তমান জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট নৈতিক এবং মানবিক শিক্ষার বিষয়টি নিয়ে আমাদের আরেকবার ভাবাচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে সুশিক্ষা একজন ব্যক্তির নৈতিক মানদণ্ডকে উন্নত করার পাশাপাশি তার ভিতরকার মানবিক মূল্যবোধকে জাগ্রত রাখে। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তথা শিক্ষার্থীদের একটি ‘বৃক্ষ’ হিসেবে বিবেচনা করা যায়, যার পরিপূর্ণভাবে বেড়ে উঠা নির্ভর করে সঠিক পরিচর্যার ওপর। শিক্ষার্থীদের সুষম বিকাশের বিষয়টি তাদের যথাযথভাবে দেখাশোনা এবং পরিচর্যার ওপর নির্ভরশীল। শিক্ষার্থীদের নানামুখী সামাজিক কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত করে তাদের ভিতর সামাজিক দায়িত্ববোধ গড়ে তোলা জরুরি বলেও জানান তিনি ।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান সমাজে নেতিবাচক বিষয়গুলোর প্রভাব খুব বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে তাই এসব ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের বিবেচনা বোধ সুদৃঢ় করতে হবে। যেহেতু নৈতিক গুণাবলির বিকাশ ঘটে মূলত পারিপার্শ্বিক অবস্থা থেকে তাই এক্ষেত্রে পরিবার, সমাজ ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সবাইকে সমভাবে ভূমিকা রাখতে হবে।

সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি মোঃ শাহাব উদ্দিন কোরাইশি বলেন, মূল্যবোধ চর্চা রীতিনীতি ও আদর্শের মাপকাঠি হিসেবে পরিগণিত যা সমাজ ও রাষ্ট্রের অন্যতম মূল ভিত্তি হিসেবে ধরা হয়। ব্যক্তির আদর্শের নীতি ভালো-মন্দের মধ্যে একটা স্পষ্ট পার্থক্য গড়ে দেয়। আজ থেকে ২০-২৫ বছর আগেও দেখা যেত কেউ একজন অনৈতিক কাজে জড়িত বা বিপথে থাকলে তাকে অনেকেই এড়িয়ে চলছে কিংবা যিনি অন্যায় বা অপরাধ করতেন, তিনি নিজেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে অন্যদের এড়িয়ে চলতেন। অন্যদিকে গণ্যমান্য ব্যক্তি, শিক্ষক কিংবা বয়োজ্যেষ্ঠ মানুষ সুপরামর্শ দিতেন এবং সমাজের সকলে তাদের সম্মান করতেন। কিন্তুু বর্তমান সময়ে এসে প্রযুক্তির যথেচ্ছ ব্যবহার, আকাশ সংস্কৃতির ছড়াছড়ি ও নগরকেন্দ্রিক ব্যস্ত জীবনযাপনের কারণে অনেক পরিবর্তন হয়েছে যা নতুন প্রজন্মের মূল্যবোধ অবক্ষয়ের জন্য কিছুটা উৎকন্ঠার। তিনি আরো বলেন, ছাত্র জীবনেই জীবনের লক্ষ্য স্থির করে সেই অনুযায়ী নতুন প্রজন্মকে মনোযোগী হয়ে ভবিষ্যৎ গন্তব্যে পৌঁছাতে ব্রতী হতে হবে।

সম্পাদক: শাহ সুহেল আহমদ
প্যারিস ফ্রান্স থেকে প্রচারিত

সার্চ/খুঁজুন: