শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শাবির প্রধান ফটকের সামনে মানববন্ধন : বিক্ষোভ সমাবেশ




শাবি প্রতিনিধি :: বাস চাপায় হত্যাকারীদের বিচার এবং নিরাপদ সড়কের দাবীতে ও বিভিন্ন স্কুল-কলেজের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে দ্বিতীয়দিনের মতো মানববন্ধন, বিক্ষোভ এবং সমাবেশ কর্মসূচি পালন করেছে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা। আজ (২রা আগস) বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিক থেকে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ডাকে শাবির মূল ফটকের সামনে এসব কর্মসূচি পালন করে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ডাকে শাবির প্রধান ফটকে অবস্থান করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। রাজধানীতে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থীর হত্যাকারীর বিচার, ঢাকার আন্দোলনরত স্কুল শিক্ষার্থীদের উপর হামলা এবং নিরাপদ সড়কের দাবিতে এসব কর্মসূচি পালন করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এ কর্মসূচিতে প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এসময় অনেক শিক্ষার্থীর হাতে ‘বাচ্চাদের গায়ে রক্ত কেন? প্রশাসন জবাব চাই।’, ‘মৃত্যু মুখর শোক স্লোগান, বাংলা নয় গোর শ্মশান’, ‘যদি তুমি ভয় পাও তবে তুমি শেষ, যদি তুমি রুখে দাঁড়াও তবে তুমি বাংলাদেশ’, ‘আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর হামলা কেন?’, ‘স্বাধীনতা তুমি বাসের চাপায় পিষ্টে যাওয়া তরতাজা দুটি লাশ, স্বাধীনতা তুমি দুটি ফুল ঝরে পড়ায় মালির করা উচ্ছ্বাস’, স্লোগান সংবলিত হাতে লেখা ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে অবস্থান করে।
শাবির মূল ফটকে প্রায় এক ঘন্টা অবস্থান করে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি সিলেট নগরীর মদিনা মার্কেট এলাকা প্রদক্ষিণ করে শাবি ফটকের সামনে ফিরে আসে। এসময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থী বৃষ্টি উপেক্ষা করে মূল ফটকের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়।

সমাবেশে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সমন্বয়ক জুয়েল রানার সঞ্চালনায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে শাবির সংগঠন সাস্ট অ্যারেনার সাবেক সাধারণ সম্পাদক খৈরুম কামেশ্বর, সংগঠনের বর্তমান সভাপতি রিফাত হায়দার, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সদস্য তৌহিদুজ্জামান জুয়েল, সাস্ট এসডি এর সাবেক সাধারণ সম্পাদক আদনান শাহ, চোখ ফিল্মের সভাপতি তুহিন ত্রিপুরা বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা তাদের বক্তব্যে, “নিরাপদ সড়কে ব্যবস্থা তৈরি করতে সরকারের দ্রুত পদক্ষেপ কামনা করে। সেই সাথে শিক্ষার্থীদের বেধে দেওয়া নয় দফা দাবী মেনে নেওয়ার আহবান জানায়। এসময় নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য প্রত্যাহার করে শিক্ষার্থীদের নিকট ক্ষমা চেয়ে তার পদত্যাগ দাবী করা করা হয়। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলাকে ন্যাক্কারজনক দাবী করে, এর প্রতি তীব্র প্রতিবাদ এবং হামলাকারী পুলিশদের বিচারের দাবী জানায়। সেই সাথে সারা বাংলার শিক্ষার্থীদের এই ন্যায্য দাবির আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে সম্মতি প্রকাশ করে বলেন, এই শিক্ষার্থীদের উপর আর কোন হামলা হলে আমরা এর জবাব দিবো।

সম্পাদক: শাহ সুহেল আহমদ
প্যারিস ফ্রান্স থেকে প্রচারিত

সার্চ/খুঁজুন: