শনিবার, ২২ জুন ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঢাকা চলচ্চিত্র উৎসবে ফরাসি সিনেমা নিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশি নয়ন এনকে




শাবুল আহমেদ, প্যারিস (ফ্রান্স):

ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে অভিবাসী বিষয়ক ফরাসি চলচ্চিত্র “Voyages en têtes étrangères” (ভয়াজ অঁ-থেত এথনঁজেখ)।
২০-২৮ জানুয়ারি ২০২৪, অনুষ্ঠেয় ২২তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিতে চলচ্চিত্রের ফ্রান্স প্রতিনিধি হিসেবে ঢাকা যাচ্ছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফরাসি নাগরিক প্রফেসর এনকে নয়ন।
এ উপলক্ষে শনিবার (৯ জানুয়ারি) প্যারিসের ফাস্তি কার্যালয়ে এক ‘মিট দ্যা প্রেস’র আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন, সিনেমার পরিচালক ফরাসি নির্মাতা আন্তনিও, ছবির মূল চরিত্রের অভিনয়শিল্পী জুলিয়া, এলিজাবেথ বাকী ও মোহাম্মদ আমিন।


এছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সলিডারিটিতে আজি ফ্রান্স (সাফ)’র প্রেসিডেন্ট প্রফেসর নয়ন এনকে, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফরাসি আইনজীবী আকাশ হেলাল, সাফ সদস্য মামুন হাসান, আব্দুল হান্নান, শাম্মী জাহান, আফসানা মিমি, তৌহিদ আহমেদসহ ফ্রান্সে কর্মরত বিভিন্ন বাংলা মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।
পরিচালক আন্তনিও বলেন, ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের জন্য সিনেমাটি মনোনীত হওয়ায় আমি খুবই আনন্দিত। আশা করি- সিনেমাটি আমাদের জন্য আরো সুসংবাদ বয়ে আনবে। তিনি বলেন, মূলতঃ আমাদের এ চলচ্চিত্রের উপজীব্য বিষয় হচ্ছে অভিবাসী, তাই আমি চেয়েছি ব্যক্তিগত জীবনে সত্যিকারভাবে অভিবাসী জীবন-যাপনের সঙ্গে যাদের পরিচয় তথা ভুক্তভোগী। তাদেরকে দিয়ে মূল চরিত্র নির্মাণ করতে। যাতে তাদের অভিনয়ের মাধ্যমে নিঁখাদভাবে বিষয়টি ফুটে ওঠে।


সাফ’র প্রেসিডেন্ট প্রফেসর নয়ন এনকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে অভিবাসী নিয়ে আমি কাজ করে যাচ্ছি। যার কারণে বাংলাদেশে অনুষ্ঠেয় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে সিনেমাটি নিয়ে যাওয়ার জন্য আমাকে মনোনীত করা হয়েছে। এজন্য একজন বাংলাদেশি হিসেবে আমি গর্বিত আশা করি- মুক্তির পর হলে গিয়ে সবাই সিনেমাটি উপভোগ করবেন।
ইমাজ ফনতুম প্রযোজিত অভিবাসী বিষয়ক সায়েন্স ফিকশন চলচ্চিত্র “ভয়াজ অঁ-থেত এথনঁজেখ” ইতোমধ্যে ইন্ডিয়া, পর্তুগাল, পানামা, ব্রাজিল, স্পেন, ইকুয়েডর, তুর্কী, কানাডাসহ প্রায় ৩৬ টি গুরুত্বপূর্ণ চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নেয়। এরমধ্যে ১৩ টি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কার অর্জন করে। ১ ঘন্টা ৫৯ মিনিট দৈর্ঘ্য এ চলচ্চিত্রের চিত্রায়ন করা হয়েছে ফ্রান্সের বিভিন্ন লোকেশনে। চিত্রনাট্য লিখেছেন আনা ও কারলিন।
পরিচালক আন্তনিও জানান, চলতি মাসের ১৬ ডিসেম্বর চলচ্চিত্রটি ফ্রান্সের সিনেমা হলে মুক্তি পাবে।
অভিবাসীদের জীবন-যাপন ঘিরে আবর্তিত ফরাসি এ চলচ্চিত্রে দেখা যায়- ২১ দিন সময় নিয়ে জিল, সালি আদামো নামে তিনজন লোক ভিনগ্রহ থেকে পৃথিবীতে আসেন। তাদের মধ্যে দুইজন পুরুষ ও একজন নারী।
পৃথিবীতে এসে একজন প্রবেশ করেন ফ্রান্সে আশ্রয়প্রার্থী অনিয়মিত আফ্রিকার একজন পুরুষের শরীরে। যে কাগজহীন থাকার কারণে নানান দুর্ভোগ, দুর্দশা আর উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা নিয়ে দিনপাত করছেন। অন্যজন প্রবেশ করেন ফরাসি একজন অফিসারের ভেতরে। ঐ ফরাসি অফিসার দাম্পত্য জীবনে সম্পর্কের টানাপোড়েন নিয়ে জীবন-যাপন করছেন। তাদের ঘরে রয়েছে ছোট্ট একটি সন্তান। অন্যজন প্রবেশ করে ফ্রান্সে বৈধভাবে বসবাসকারী এক আফ্রিকান মহিলার শরীরে। তাদের অন্যতম স্বাধীনতা ছিল যে তারা যে কোন সময় যে কারো শরীরে প্রবেশ করতে পারবে। এভাবেই বিভিন্ন ঘটনা প্রবাহ নিয়ে গড়ে ওঠেছে গল্পের নানান দিক। ছবির মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন- জুলিয়া, এলিজাবেথ বাকী ও মোহাম্মদ আমিন।

সম্পাদক: শাহ সুহেল আহমদ
প্যারিস ফ্রান্স থেকে প্রচারিত

সার্চ/খুঁজুন: