বুধবার, ২৯ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশ ছাড়ার পর গাড়ি জব্দ ‘সেরা তামাশা’: রিজভী




বৃহস্পতিবার এক ভার্চুয়াল সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, “সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সহযোগিতা দিয়ে হত্যাচেষ্টা মামলার দুই আসামিকে দেশের বাইরে পাঠিয়ে রক্ষা করার পর গাড়ি আটকের ঘটনা সত্যিই বছরের সেরা তামাশা।”

এক্সিম ব্যাংকের শীর্ষ দুই কর্মকর্তাকে অপহরণ ও হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগে গত ১৯ মে সিকদার গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও ন্যাশনাল ব্যাংকের পরিচালক রন হক সিকদার এবং তার ভাই দিপু হক সিকদারের বিরুদ্ধে মামলা হয়।

এরপর গত ২৫ মে সিকদার গ্রুপের মালিকানাধীন একটি এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে দুই ভাই ব্যাংককে পাড়ি জমান।

সোমবার মামলাটির তদন্তভার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশকে দেওয়া হয়। পরদিন রনর ‘ল্যান্ড রোভার’ গাড়িটি জব্দ করে পুলিশ।

এ প্রসঙ্গ টেনে রিজভী বলেন, “মানুষকে কতটা বোকা ভাবলে সরকার এই ড্রামা করতে পারে! সন্ত্রাসীদের কীভাবে রক্ষা করতে হয় আওয়ামী লীগ তা জনে।”

আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে এই বিএনপি নেতা বলেন, “ক্ষমতাসীনরা নিজের দলীয় ফাঁসির আসামিদের রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে খালাস দেয়। ঠিক একইভাবে সন্ত্রাসী সিকদার ব্রাদার্সকে দেশের বাইরে পাঠিয়ে দিয়েছে।”

‘জনগণ গিনিপিক’

সরকারের ‘ব্যর্থতার’ কারণে দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে’ মন্তব্য করে রিজভী বলেন, ‘‘হিমালয় প্রমাণ ভুল সিদ্ধান্ত, অর্বাচীনতা, ব্যবসায়ী ও আমলাদের স্বার্থের কাছে নতজানুতা এবং সরকারের একটি বিভাগের সাথে আরেকটি বিভাগের সমন্বয়হীনতা মানুষের জীবনকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে। অনির্বাচিত সরকারের কাছে জনগণের মূল্য ছিটেফোঁটাও নেই।”

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিবের ভাষায়, “জনগণ এখন তাদের (সরকার) গবেষণাগারের গিনিপিগ। অবিবেচকের মত সবকিছু খুলে দিয়ে এখন তামাশা দেখছে তারা। তাদের ভাবখানা এমন-চরে খাও, বাঁচলে বাঁচো, মরলে মর। আমরা তো গদিতে আছি আরামে।”

গণ-পরিবহনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে রিজভী বলেন, “উনি (ওবায়দুল কাদের) নিজে ব্যর্থতার কথা স্বীকার করে বলেছেন, কিছু পরিবহনের বিরুদ্ধে বাড়তি ভাড়া আদায় ও স্বাস্থ্যবিধি না মানার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়কারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে বিআরটিএ ও সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।”

“আমি যাত্রীদেরকেও সচেতন থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। তা না হলে টার্মিনাল এবং বাসযাত্রা হতে পারে সংক্রমণ বিস্তারের কেন্দ্র। কার্যত জনগণের জীবন নিয়ে বালখিল্য চলছে। নিজেদের দলীয় সিন্ডিকেটের পকেট ভরতে গণ-পরিবহনের ভাড়া বাড়ালেন। ঘোষণা করেছিলেন মনিটরিং করবেন। কোথায় সেই মনিটরিং মোবাইল কোর্ট?”

অবিলম্বে বাসের বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহার করে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি কার্য্কর করার দাবি জানান রিজভী।

সম্পাদক: শাহ সুহেল আহমদ
প্যারিস ফ্রান্স থেকে প্রচারিত

সার্চ/খুঁজুন: